সম্ভাবনাময়ি সবজি ব্রাসেল স্প্রাউট চাষ পদ্ধতি

আপনি গতানুগতিক ব্রোকলি, ফুলকপি খেতে খেতে বিরক্ত?

যদি তাই হয়, তাহলে আপনার বাজারের ব্যাগ এ ফুলকপি আর ব্রোকলির বিকল্প হতে পারে ব্রাসেলস স্প্রাউট। হয়তো আপনি নাম প্রথম শুনছেন, হয়তো আগে থেকেই আপনি এই স্প্রাউট এর ব্যাপারে ওয়াকিবহাল। তবুও চলুন শুরু করি স্প্রাউট নিয়ে জানার ক্ষুদ্র এক যাত্রার প্রচেষ্টা। এই ভ্রমণে ড্রাইভার হিসেবে আমি এনায়েত রাফি থাকবো আপনার সাথে।

কি এই ব্রাসেলস স্প্রাউট

শীত প্রধান দেশগুলোর একটি সুপরিচিত এই সবজি আমাদের গতানুগতিক ফুলকপি, বাঁধাকপি বা ব্রোকলি এর নিকটতম আত্মীয়। বৈজ্ঞানিক নামও একই Brassica oleracea যদিও ভ্যারাইটি আলাদা। এটি Cruciferae (বর্তমান Brassicaceae) পরিবারের কনিষ্ঠতম সদস্য। শীতপ্রধান দেশের সবজি হলেও বর্তমানে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উদ্যান তত্ত্ব বিভাগের প্রফেসর আবুল হাসনাত এম সোলায়মান এবং এম এস ফেলো কাজী নওরিন এর ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় বাংলাদেশে চাষের উপযোগী হয়েছে এই কিউট দেখতে সবজিটি।

ছাদ বাগানের জন্য উপযোগী এই সবজি গাছের উচ্চতা সর্বোচ্চ ৪.৫ ফিট পর্যন্ত হয়, এবং গাছ লাগানোর ১ মাসের মধ্যে গাছের সর্বাঙ্গ জুড়ে স্প্রাউট( বাড) দেখা দেয়। বাড বের হওয়ার ২৮ দিনের মধ্যে স্প্রাউট হার্ভেস্ট করার উপযোগী হয় এবং প্রায় প্রতিদিন উৎপাদন করা যায়। সঠিক মাত্রায় সার প্রয়োগ, তাপ সহনশীল জাত, কীটপতঙ্গ ও রোগবালাই দমনের মতো উন্নত চাষাবাদ পদ্ধতি উদ্ভাবনের মধ্য দিয়ে খুব শিগগিরই এটি বাংলাদেশে মাঠপর্যায়ে বাণিজ্যিকভাবে সম্প্রসারণে উদ্যোগ নেওয়া হবে।

একটি গাছে প্রায় ৪০-৫০ টির মতো স্প্রাউট ধরে, এবং প্রতিটি স্প্রাউট এর ওজন হয় প্রায় ৫০-৭০ গ্রাম।

কেন খাবেন স্প্রাউট

আপনার খাবার টেবিলে ফুলকপির বিকল্প হতে পারে এই স্প্রাউট। অন্যান্য কপি( আই মিন ফুলকপি, বাঁধাকপি) এর তুলনায় এই কিউট দেখতে সবজিতে গ্লুকোসিনোলেটস এর পরিমাণ সর্বাধিক। যারা জানেন না গ্লুকোসিনোলেটস কি? তারা নিজের অজান্তে বাড়িয়ে নিচ্ছেন ক্যান্সারের ঝুঁকি।

ক্যান্সার প্রতিরোধী ব্রাসেলস স্প্রাউট ব্রাসেলস স্প্রাউট চাষের সম্ভাবনা নতুন সবজি ব্রাসেলস স্প্রাউট কিভাবে চাষ করবেন ব্রাসেলস স্প্রাউট, ব্রাসেলস স্প্রাউট – সম্ভাবনাময় নতুন সবজি, Greenicultureগ্লুকোসিনোলেটস ক্যান্সার প্রতিরোধী বায়োকেমিকাল এজেন্ট, যা Brassica জাতীয় সবজিতে উপস্থিত থাকে। এছাড়াও ভিটামিন এ, বি কমপ্লেক্স( থায়ামিন, রিবোফ্লাভিন, নিয়াসিন), এবং অন্যান্য এন্টি অক্সিডেন্ট এর পরিমানও অনেক বেশী মাত্রায় থাকে। তাই অনায়াসে আপনার টেবিলে একটা ফুলকপির যোগ্য উত্তরসূরী হতে পারে এই কিউট দেখতে সবজি।

ছাদ বাগানেও শোভাবর্ধন করবে এই গাছ, তার সাথে আপনাকে যোগান দিবে পুষ্টি এবং প্রতিরোধ করবে ক্যান্সার। অনেক জ্ঞান দিলাম, জ্ঞানের সাগরে ভাসতে থাকুন, হাসতে থাকুন, বেশী করে গাছ লাগান, গ্রীন হাউজ ইফেক্ট কমান।

পদ্ধতি:

ব্রাসেলস স্প্রাউট উৎপাদন করতে হলে বেলে দোআঁশ বা এঁটেল দোআঁশ মাটির প্রয়োজন, বীজ পোঁতার আগে মাটির সাথে ভালো করে জৈব সার ও প্রয়োজন মতো কম্পোষ্ট সার মেশাতে হবে কারণ জৈব সারে চাষ হলে ফসলের গুণমান খুব ভালো থাকে। সারি তৈরির সময় এক সারি থেকে আরেক সারির দূরত্ব ৩ ফুট ও প্রতি গাছের মধ্যে দূরত্ব থাকবে দুই ফুট।

বীজ পোঁতার পর বীজতলা থেকে চারা তৈরী হতে সময় নেয় ২০-২৫ দিন, ও ১৫ দিন অন্তর অন্তর সেচের কাজ করতে হবে। বাঁধা কপির রোগ পোকার মতোই এই ফসলের রোগ পোকা, তাই বাঁধাকপিতে যে পেস্টিসাইড ব্যবহার হয়, এতেও তাই। ফলন কালে একটানা ১৫-২০ দিন ফলন পাওয়া যায় এবং এক একটি গাছ থেকে প্রায় ৪৫-৬০ টি কপি পাওয়া যায় প্রতিটির ওজন গড়ে ৫০ গ্রাম করে।

বেবি ক্যাবেজের উন্নত প্রজাতি গুলি হলো, হিলস আইডল, অ্যামেজার, অলিভার, রিভাকো পার্ল ক্রিস্টাল, জেড ক্রস, প্রভৃতি।

Loading...