এভাবে রান্না করে ভাত খেলে মোটা হওয়ার ভয় নেই, কমবে ডায়াবেটিসও, জেনে নিন বিস্তারিত

মাছে-ভাতে বাঙালি বহু প্রচলিত কথা। কারণ এই দুটোই বাঙালির প্রধান খাবারগুলোর মধ্যে অন্যমত। বাংলাদেশে দিনে দু‘বেলা ভাত খেয়ে থাকে, গ্রামে এখনো তিন বেলা। ভাতে মূলত ক্যালোরির পরিমাণ বেশি যা ডায়াবেটিসের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। এ কারণে ডায়াবেটিস রোগিদের ডাক্তাররা ভাত কম খাওয়ার পরামর্শ দেন।

এ কারণে অনেক ডায়াবেটিস রোগি শঙ্কায় থাকেন কি পরিমাণ ভাত খাবেন। এই সমস্যার সমাধান দিয়েছেন শ্রীলংকার বিজ্ঞানীরা। তারা ভাত রান্নার এক নতুন পদ্ধতি আবিষ্কার করেছেন। এতে করে ভাতে ক্যালরির পরিমাণ কমে যাবে। ফলে হ্রাস পাবে ডায়াবেটিসের ঝুঁকি। এমন খবর প্রকাশ করেছে সংবাদ সংস্থা বিবিসি।

বিজ্ঞানী সুদাহির জেমস ও ড. পুষ্পরাজা তাবরাজা শ্রীলংকার কলেজ অব কেমিক্যাল সায়েন্সে এই গবেষণাটি করেছেন। আমেরিকান কেমিক্যাল সোসাইটির জাতীয় সভায় বিজ্ঞানীরা গবেষণাটির প্রাথমিক ফল প্রকাশ করেন।

গবেষণা শেষে এই দুই বিজ্ঞানী বলেন, ‘নতুন পদ্ধতিতে রান্না করা হলে ভাতের ক্যালরির পরিমাণ অর্ধেক কমিয়ে আনা সম্ভব।’

ভাত রান্নার নতুন পদ্ধতি :

প্রথমে পাত্রে পানি ফোটাতে হবে, এরপর তাতে যে পরিমাণ চাল রান্না করবেন তার প্রায় তিন ভাগ পরিমাণ নারকেল তেল দিতে হবে। এরপর সেই ফুটন্ত পানিতে চাল দিতে হবে। আর ভাত রান্না হয়ে গেলে তা ফ্রিজে ১২ ঘন্টা রেখে ঠান্ডা করতে হবে। এরপর তা খাওয়া যাবে।

এ বিষয়ে ড. পুষ্পরাজা বলেন, ‘নারকেল তেল দিয়ে ভাত রান্না এবং তারপর তা ১২ ঘন্টা ধরে ঠান্ডা করার ফলে ভাতের ভেতর যে স্টার্চ বা শ্বেতসার আছে – তার রাসায়নিক প্রকৃতি বদলে যায় এবং তার ক্যালরির পরিমাণ কমিয়ে দেয়। আর ক্যালরির পরিমাণ কমে যাওয়া মানে ডায়াবেটিসের ঝুঁকিও কমে যাওয়া।’

শ্রীলংকার ৩৮ প্রজাতির চাল নিয়ে এ পরীক্ষা চালিয়েছেন এই দুই বিজ্ঞানী। এখন তাদের লক্ষ্য বাকি প্রজাতির চালের ওপর এই পরীক্ষা করা। এছাড়াও নারকেল তেল ছাড়া অন্য তেল দিয় এই সুফল পাওয়া সম্ভব কিনা সেই বিষয়েও গবেষণা করা হবে।

৫০০০+ মজদার রেসিপির জন্য Google Play store থেকে Install করুন “Bangla Recipes” মোবাইল app…. 🙂
.
মোবাইল app Download Link >>> https://bit.ly/2YsK4MO

Loading...